চলচ্চিত্র: এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী
পরিচালক: বাদল রহমান
কলাকুশলী: গোলাম মোস্তফা , এটিএম শামসুজ্জামান, শর্মিলী আহম্মেদ, সারা জাকের, শিপলু
দেশ: বাংলাদেশ
সাল: ১৯৮০
গল্প সংক্ষেপ
 
রচনা প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে খুলনার ছেলে এমিল ট্রেনে চড়ে ঢাকায় রওনা দেয়। কারণ, সে রচনা প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ হয়েছে। তার পকেটে মা ৫০০ টাকা দেয় খালাকে দেওয়ার জন্য; কিন্তু ঘুম থেকে উঠে সে দেখে, পকেটে টাকা নেই। চোরের পিছু নেয় এমিল। ওই চোর ঢুকে পড়ে ইন্টার কন্টিনেন্টাল হোটেলে। এমিল সেখানেই চোরের অপেক্ষা করতে থাকে। ঠিক তখনই এমিলের সঙ্গে পরিচয় ঘটে তৃপ্তির। তার কাছে সবকিছু খুলে বলে এমিল। তৃপ্তিকে এমিলই বলে, তার বন্ধুদের নিয়ে আসতে। কারণ, । এ সময় বন্ধুদের নিয়ে আসে তৃপ্তি। চলে আসে শিপলু, মনির, ইমরান, নিশু, সুমন, শৈবাল, অরূপ, সুমিত। তাদের নিয়েই গঠন করা হয় গোয়েন্দা দল। তারাই রহস্য উন্মোচনের জন্য নানারকম বুদ্ধিমত্তার প্রদর্শন শুরু করে। এ সময় বন্ধুদের সঙ্গে বন্ধুর সম্প্ররকের অনেক ছোটখাটো বিষয়ও উঠে আসে।
মূল কলাকুশলী
পরিচালক বাদল রহমান
প্রযোজক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, বাদল রহমান
রচয়িতা এরিখ কাস্টনার
চিত্রনাট্যকার বাদল রহমান
উৎস এরিখ কাস্টনার কর্তৃক
এমিলের গোয়েন্দা দল
চিত্রগ্রাহক আনোয়ার হোসেন
সম্পাদক বাদল রহমান
অভিনয়শিল্পী
গোলাম মোস্তফা
সারা জাকের
এটিএম শামসুজ্জামান
শর্মিলী আহম্মেদ
মাস্টার পার্থ
রেয়াজ শহীদ – এমিল
শিপলু
টিপটিপ
জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
শেষ্ঠ চলচ্চিত্র প্রযোজক
শেষ্ঠ পার্শ্ব-চরিত্র
শেষ্ঠ শিশুশিল্পী
শেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক
শেষ্ঠ সম্পাদনা
মুক্তি
চলচ্চিত্রটি ১৯৮০ সালের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মাসে ঢাকায় মুক্তি দেয় হয়